All for Joomla The Word of Web Design
উপ-সম্পাদকীয়

বাংলাদেশ-ভারত শিক্ষা বিনিময় চুক্তি করা হোক

১৮৬৬ সালে অবিভক্ত ভারতের ইউ.পি. (উত্তর প্রদেশ) এর সাহারানপুর জেলার দেওবন্দ নামক এলাকায় প্রতিষ্ঠিত হয় বিশ্ববিখ্যাত অরাজনৈতিক ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ‘দারুল উলূম দেওবন্দ। উপমহাদেশের সকল আলেম উলামা এ প্রতিষ্ঠানের ছাত্র বা ছাত্রের ছাত্র। বাংলাদেশের সকল কওমী মাদরাসা এ মাদরাসার শাখা প্রশাখা। এই মাদরাসা থেকে পাশ করা আলেমগণই বাংলাদেশের আলিয়া মাদরাসাগুলোর মুহাদ্দিস, হেড মুদার্রিছ ও প্রিন্সিপাল হতেন। জাতীয় মসজিদ বাইতুল মুকাররমের প্রথম থেকে শেষের পূর্ব পর্যন্ত সকল ইমাম ও খতীবগণ এবং বর্তমানে বাংলাদেশের জাতীয় মসজিদের দুজন সিনিয়র পেশ ইমাম ও দুজন পেশ ইমাম এবং মুআজ্জিন ও খাদিমগণ প্রায় সকলেই দারুল উলূম দেওবন্দ থেকে পাশ করা অথবা ভারতের লাক্ষ্ণৌস্থ ‘নাদওয়াতুল উলামা’ থেকে বা ভারতের অলীগড় সহ অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানে লেখা পড়া করা।

এখনও বাংলাদেশের বহু মাদরাসার মুহতামিম (প্রিন্সিপাল), শাঈখুল হাদীস, মুফতী মুফাসসিরসহ সিনিয়র শিক্ষক মণ্ডলী ভারত থেকে পাশ করা।
ভারতে লেখা পড়া করা আলেমদের বাংলাদেশে বিশেষ কদর রয়েছে।
বাংলাদেশ থেকে ভারতে যাতায়াত খরচ কম।
বাংলাদেশ ও ভারতের ভাষার (বাংলা-হিন্দী-উর্দূ‘র) নৈকট্য বা মিল রয়েছে।
সর্বোপরি বাংলাদেশী আকাবের উলামাগণ সকলেই ভারত থেকে পাশ করা ছিলেন।
বিধায় বাংলাদেশী মাদরাসা ছাত্ররা উচ্চ শিক্ষার জন্য ভারতকে পছন্দের শীর্ষে রাখেন।

১৯৪৭ এর ১৪ আগস্টে দেশ ভাগ হলেও বাঙ্গালী আলেমদের ভারতে শিক্ষার্জন চলছিলো।
১৯৭১ এর ২৬ মার্চ বাংলাদেশ স্বাধীন হলেও তৎপরবর্তিতেও বাংলাদেশী তালেবে এলেমদের ভারত যাওয়া অব্যাহত থাকে।
১৯৯০ এমন কি ২০০০ সাল পর্যন্ত এতে তেমন বিপত্তি দেখা দেয়নি। (মাদরাসা শিক্ষার্থীদের ভিসা-পাসপোর্টের বিষয়ে কড়াকড়ি আরোপ করা হতো না)।

বর্তমানে বৈশ্বিক নানান পট পরিবর্তনের কারণে (আল কায়েদা, হরকতুল জিহাদ, জেএমবি, আইএসআইএস সহ স্থানীয়, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক জঙ্গীবাদী সন্ত্রাসী সংগঠনের আতংকবাদী কর্মকাণ্ডের দরুন) পাসপোর্ট-ভিসা ছাড়া ভারতে যাতায়াত কঠিন হয়ে পড়েছে। এতে নিরীহ শিক্ষার্থীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।
সাধারণত বাংলাদেশ থেকে জমাতে ছুয়াম-দুয়াম বা ঊলা (মিশকাত-জালালাইন) বা টাইটেল (দাওরায়ে হাদীস) পাশ করে ভারতের দারুল উলূম দেওবন্দ, সাহারানপুর, লাক্ষ্ণৌ নাদওয়াতুল উলামা, হারদুঈ ও আলীগড় মুসলিম ইউনিভার্সিটি সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে উচ্চ শিক্ষার জন্য গিয়ে থাকেন।
এসব প্রতিষ্ঠানে ১ থেকে ৩ বছরের উচ্চ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা এবং হাদীস, তাফসীর, ফিকাহ ও ভাষা সাহিত্যের উপর ১ থেকে ২ বছরের উচ্চতর শিক্ষা কোর্স রয়েছে। বাংলাদেশী ছাত্ররা বেশিরভাগ ১ থেকে ২ বছরের কোর্সই করে থাকেন।

বাংলাদেশ থেকে ভারতের দূতাবাস ১ বছরের মাল্টিপল ভিসা দিয়ে থাকে, যাতে একবারে সর্বোচ্চ ৩ মাস থাকার সুযোগ রয়েছে। কিন্তু ৩ মাস পর ফিরে এলে যৌক্তিক কারণ ছাড়া পুনরায় যাওয়া সম্ভব নয়। তাই অনেক বাংলাদেশ ছাত্ররা একবার প্রবেশ করে তাদের ১-২ বছরের কোর্স শেষ করে তারপরই দেশে ফেরেন। এতে তাদের ভারতে অবস্থান ও সীমান্ত পারাপরে নানাহ জটিলতায় পড়তে হয়।
সম্প্রতি গত ১১ মে ২০১৮ তারিখে ২৪ ছাত্র সীমান্তে তাদের বৈধ পাসপোর্ট (মেয়াদোত্তীর্ণ ভিসা) সহ আটক হন। আল্লাহর মেহেরবানী স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠান জামেয়া ইউনুছিয়ার সহযোগিতায় তারা ১৩.০৫.২০১৮ তারিখে ছাড়া পেয়ে দেশে ফেরেন।

আমাদের প্রস্তাব:
১. বাংলাদেশ সরকার ভারত সরকারের সাথে বিশেষ ভিসা চুক্তি করুক।
২. বাংলাদেশ সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয় ভারত সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সাথে শিক্ষা বিনিময় চুক্তি করুক।
৩. বাংলাদেশ সরকারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভারত সরকারের সরকারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাথে ছাত্র বিনিময় চুক্তি করুক।
৪. বাংলাদেশ সরকার স্বীকৃত ‘বেফাকুল মাদারিস’ (আল হাইআতুল উলইয়া), অন্যান্য স্থানীয়, আঞ্চলিক ও স্বায়ত্ব শাসিত কওমী মাদরাসা বোর্ড বা দেশের স্বনাম ধন্য সুপরিচিত কওমী (দাওরায়ে হাদীস) মাদরাসা সমূহ ভারতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি করতে পারেন।
* যাতে ঢাকাস্থ ভারতীয় দূতাবাস শিক্ষার্থীদের জন্য ৫ বছরের মাল্টিপল ভিসা ইস্যু করে এবং প্রতিবার প্রবেশে অন্তত ১ বছর থাকার অনুমতি পায়।
* ‘বেফাকুল মাদারিস’ (আল হাইআতুল উলইয়া) এর তত্বাবধানে একটি দফতর এ বিষয় তদারকি করবে এবং অনুরূপ ভারতেও মাদরাসা বোর্ডের একটি শাখা এটি মনিটরিং করবে।
* এতে উভয় দেশই লাভবান হবে।
সকলের সুপরামর্শ ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

অধ্যক্ষ মুফতী শাঈখ মুহাম্মাদ উছমান গনী 
সহকারী অধ্যাপকঃ আহ্ছানিয়া ইনস্টিটিউট।
প্রিন্সিপ্যালঃ আল কুরআন ইনস্টিউট ঢাকা।
মুফাসসির ও প্যানেল খতীবঃ বাইতুল মুকাররম জাতীয় মাসজিদ ও জাতীয় ঈদগাহ।
সহ-সম্পাদকঃ দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ।

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password

শিরোনাম:
  ❖   “সত্য আমায় ব্যাকুল করেছে”- উম্মে হাবীবা   ❖   ইভটিজিং প্রতিরোধে ইসলামী অনুশাসন   ❖   ‘ভোট ডাকাতির চেষ্টা হলে কঠিন মাশুল গুণতে হবে’   ❖   হাই কোর্টে বিএনপির আরও তিন প্রার্থী ধরা খেলেন   ❖   আমেরিকার হাত ইয়েমেনের জনগণের রক্তে রঞ্জিত: নিউ ইয়র্ক টাইমস   ❖   তাপসের মিছিলে ঢলে পড়লেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল   ❖   ১০০ বছর ধরে গির্জা রক্ষণাবেক্ষণ করছে এক মুসলিম পরিবার   ❖   কোন ষড়যন্ত্রেই বাংলাদেশের উন্নয়নের চাকা থামবে না : সমাজকল্যাণমন্ত্রী   ❖   বিএনপির রাজনীতি চলে গেছে জিয়া পরিবারের বাইরে   ❖   নির্বাচন কমিশন কোনো দলের কথায় কাজ করবে না : সিইসি