All for Joomla The Word of Web Design
লাইফস্টাইল

শরীরচর্চা নিয়ে কিছু কথা

 মাহদী হাসানাত খান
বিভাগীয় সম্পাদক

   স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল। শরীর ঠিক তো সব ঠিক। শরীর সুস্থ থাকলে সব কিছুই ভালো লাগে। সুস্থ দেহ এবং সুস্থ মন— সুস্থ মানসিকতার শিল্প বহন করে। শরীর সুস্থ রাখার জন্য আমরা কতো কিছুই না করি। শরীরকে সুস্থ এবং মনকে নির্মল রাখার জন্যে নিয়মিত শরীর-চর্চা অর্থাৎ ব্যায়াম করার গুরুত্ব অপরিসীম।

ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ ধর্ম। পূর্ণাঙ্গ জীবনবিধান। তাই পূর্ণাঙ্গ জীবনবিধান হিসেবে ইসলামেও শরীর-চর্চার উপর জোর দেওয়া হয়েছে। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নিজে নিয়মিত শরীর-চর্চা করতেন এবং অন্যদের করতে উৎসাহিত করতেন। তিনি নির্দোষ খেলাধুলা, ঘোড়দৌঁড়, কুস্তি ও তীর নিক্ষেপ চর্চার জন্যে অন্যদেরকে উপদেশ দিতেন। নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, “পিতার ওপর সন্তানের অধিকার হলো— পিতা সন্তানকে লেখাপড়া, সাঁতার ও তীর-চালনা শেখাবে। [সহীহ্ মুসলিম, কিতাবুল ক্বাদর]

 নিয়মিত শরীর-চর্চা আমাদের জীবনকে অনন্য করে তোলে। শারীরিক সুস্থতার জন্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হলো নিয়মমাফিক শরীর-চর্চা করা। তাই ইবাদতের স্বার্থে হলেও প্রত্যেক মুসলিমের জন্যে শরীর-চর্চা করা অবশ্যকর্তব্য। হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, “তোমার ওপর তোমার শরীরের হক রয়েছে। [বুখারি, হাদিস নং -১৮৬৭]”

☞ শরীর-চর্চার উপকারিতা:

আমরা বলি, শরীর-চর্চা করা অত্যন্ত উপকারী। কিন্তু কতটুকু উপকারী, তা আমরা অনেকেই জানি না। শরীর-চর্চার উপকারিতা বর্ণনা করে শেষ করার মতো নয়। তারপরও বিশেষ কিছু উপকারিতা আলোচনা না করলেই নয়!

 জীবন সুস্থ রাখার জন্যে শরীর-চর্চার কোনো বিকল্প নেই। চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা বলে থাকেন, শিশুকাল থেকে শুরু করে বৃদ্ধকাল পর্যন্ত সবারই শারীরিক সুস্থতার জন্যে শরীর-চর্চা অর্থাৎ ব্যায়াম করা দরকার।

শরীর-চর্চার ফলে একজন বৃদ্ধকেও তরুণ দেখায়।

নিয়মিত শরীর-চর্চা মনকে চাঙা করে। শরীর-চর্চা করলে মস্তিষ্ক থেকে নানারকম রাসায়নিক পদার্থ নির্গত হয়। এসব রাসায়নিক উপাদান চিত্ত-প্রফুল্ল করে এবং শারীরিক ও মানসিক প্রশান্তির পাশাপাশি চেহারায় লাবণ্য ও ঔজ্জ্বল্য বাড়ায়।

নিয়মিত শরীর-চর্চাকারীকে বিষণ্নতা কিংবা হতাশা সহজে গ্রাস করতে পারে না।

নিয়মিত শরীর-চর্চা ‘ক্রনিক’ রোগ প্রতিরোধ করে।

আধুনিক জীবনে শারীরিক পরিশ্রমের পরিমাণ কমে গিয়েছে। হাঁটাহাঁটির প্রয়োজন হয় না বললেই চলে। দিনে-দিনে আমাদের খাদ্যাভ্যাসও বদলে গিয়েছে। যার কারণে ‘ক্রনিক’ রোগব্যাধি, যেমন— হৃদরোগ, ডায়াবেটিস, উচ্চরক্তচাপ, অস্থি-ক্ষয়, ক্যান্সার ইত্যাদির প্রকোপ ইদানিং বেড়ে গিয়েছে বহুগুণে। আন্তর্জাতিক ডায়াবেটিক সমিতি ও বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার প্রকাশিত তথ্যমতে— বর্তমানে বিশ্বের ৬০ ভাগ মানুষ পর্যাপ্ত শারীরিক পরিশ্রম করেন না। এ হার উন্নত বিশ্বে অনেক বেশি। শুধু শারীরিক নিষ্ক্রিয়তাজনিত কারণে প্রতি বছর পৃথিবীতে প্রায় ১৯ লাখ মানুষ মারা যায়! শারীরিক নিষ্ক্রিয়তাজনিত কারণে ১০-১৬% ডায়াবেটিস হয়ে থাকে। ১৮ থেকে ৩০ বছর বয়সীদের মধ্যে যাদের শারীরিক ফিটনেস বা যোগ্যতা কম অথবা মাঝামাঝি, তাদের শারীরিকভাবে যোগ্যদের তুলনায় ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি ৬ গুণ বেশি! কোনো ডায়াবেটিস রোগী যদি দৈনিক ২ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে হাঁটেন, তবে তার ডায়াবেটিসজনিত মৃত্যু-হার ৩৯% এবং হৃদরোগজনিত মৃত্যু-হার ৩৪% কমে যায়। প্রতিদিন অন্তত ৩০ মিনিট মাঝারি ধরনের শারীরিক পরিশ্রম শরীরে ইনসুলিনের সহনশীলতা বাড়ায়।

নিয়মিত শরীর-চর্চায় ওজন কমে। যাদের ওজন বাড়তি, তাদের জন্যে শরীর-চর্চার কোনো বিকল্প নেই। শারীরিক পরিশ্রম করলে, ক্যালরি খরচ হয়। এভাবে আমরা যতই শারীরিক পরিশ্রম করব, ততোই আমাদের ক্যালরি খরচ বাড়বে এবং শরীরের ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

নিয়মিত শরীর-চর্চা বা ব্যায়াম কর্মস্পৃহা বাড়ায়। শরীর-চর্চার ফলে আমাদের শরীরের প্রতিটি কোষে অতিরিক্ত অক্সিজেন ও পুষ্টি সরবরাহ হয়। এতে করে সচল থাকে আমাদের হৃদ্যন্ত্র এবং রক্তনালী। ফলে সমস্ত শরীরে একটি সুস্থ প্রাণস্পন্দন ও উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়।

নিয়মিত শরীর-চর্চা সুনিদ্রা আনয়ন করে। যাদের ঘুমের সমস্যা রয়েছে, তাদের জন্যে শরীর-চর্চা অত্যন্ত উপকারী। শরীর-চর্চা অনিদ্রা দূর করে এবং অতি নিদ্রা হ্রাস করে। অবশ্য একেবারে ঘুমানোর আগে শরীর-চর্চা করা উচিত নয়। কারণ শরীর-চর্চার পরে মানসিক চাঙা ভাবের কারণে ঘুম আসা বিলম্বিত হতে পারে। সেক্ষেত্রে সকাল-সকাল শরীর-চর্চা করা সবচে’ উপকারী। এ ছাড়া সন্ধ্যার আগে বিকেলটাও শরীর-চর্চার জন্যে উপযুক্ত সময়। যেহেতু শরীর-চর্চা বা ব্যায়াম করলে শরীরের ঘাম ঝরে, তাই নরম আবহাওয়াতেই শরীর-চর্চা করা ভালো।

নিয়মিত শরীর-চর্চা দাম্পত্য জীবনেও ইতিবাচক পরিবর্তন আনে।

শরীর চর্চার ফলে শরীর বেশ শক্তিশালী হয়। শারীরিক শক্তি মহান আল্লাহর দেওয়া বিশেষ নেয়ামত। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন— “যে ঈমানদার ব্যক্তির শারীরিক শক্তি আছে, তিনি শ্রেষ্ঠ ও আল্লাহর নিকট প্রিয়।” কেননা ইবাদত করার জন্য শারীরিক শক্তির প্রয়োজন। আল্লাহর পথে সংগ্রাম করার জন্যও শক্তি প্রয়োজন। তিনি আরও বলেছেন, “যে ব্যক্তি আল্লাহকে ভয় করে, তার জন্যে অর্থ-সম্পদের চেয়ে, স্বাস্থ্যই বেশি মূল্যবান।”

☞ শরীর-চর্চার জন্যে সহজ কিছু পদ্ধতি:

প্রথমত. ব্যায়ামাগারে গিয়ে শরীর-চর্চা করা যেতে পারে। কিন্তু কর্ম ব্যস্ততার কারণে তা অনেকের পক্ষেই অসম্ভব হয়ে পড়ে। কাজ শেষ করে আলাদাভাবে শরীর-চর্চা করার সময় মিলানো অনেকটা দুষ্কর ব্যাপার। তবে আমরা চাইলে দৈনন্দিন হাঁটা-চলা ও কাজ-কর্মের মাঝেও বিভিন্ন ধরনের শরীর-চর্চা করতে পারি। যেমন—

কাছাকাছি কোথাও যেতে হলে, সময় করে সেখানে হেঁটেই যেতে পারি।

লিফট্ কিংবা চলন্ত সিঁড়ির পরিবর্তে সাধারণ সিঁড়ি ব্যবহার করতে পারি। সিঁড়িতে ওঠার সময় প্রয়োজনের চেয়ে একটু বেশি শরীরকে নাড়াতে পারি অথবা পা ছড়িয়ে হেঁটে বাহুর মাঝখানে হালকা চাপ সৃষ্টি করতে পারি।

প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট হাঁটার চেষ্টা করা উচিত। এটা শরীরের জন্যে বেশ উপকারী।

শিশুদের বিকাশের জন্যে শরীর-চর্চা অত্যন্ত জরুরি। শিশুদের শরীর-চর্চার ব্যাপারে চিকিৎসকগণ বিভিন্ন খেলাধুলার কথা বলে থাকেন। যেমন— হাডুডু, ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, বাস্কেটবল, সাইকেল চালানো, টেনিস, সাঁতার কাটা, হাঁটা, দৌড়ানো, কুস্তি, পাঞ্জা প্রভৃতির মাধ্যমে শিশুরা শরীর-চর্চা করতে পারে। তবে এসব করতে গিয়ে পড়াশোনার ক্ষতি করা যাবে না। সবকিছু করতে হবে নিয়মমাফিক। অর্থাৎ পড়ার সময় পড়া আর খেলার সময় খেলা। তাহলে উভয়ক্ষেত্রে সফলতা পাওয়া যাবে।

পর্যাপ্ত ঘুমও শরীর-চর্চার অন্যতম বিষয় বলে বিবেচিত হয়। নির্ঘুম রাত মাথা ব্যথা ও শরীর অসুস্থের কারণ। ঘুমোতে যাওয়ার আগে বিছানার মধ্যে সোজা-সুজি শুয়ে পড়ে, হাত-পা উপর-নিচে ওঠা নামা করে শরীর-চর্চা করা যায়। দিনে ঘুমানোর চাইতে, রাতে পরিমিত ঘুম সবচে’ উত্তম।

“বুক-ডাউন”— ঘরে করা শরীর-চর্চা বা ব্যায়ামের মধ্যে এটি খুবই জনপ্রিয়। এই ব্যায়ামে কাঁধ এবং হাতের উপর যথেষ্ট চাপ পড়ে যা হাত এবং কাঁধের মাংসপেশীকে আরো দৃঢ় করে। এই ব্যায়ামের জন্যে দুই পা-কে পিছনের দিকে সোজা ছড়িয়ে দিতে হবে। তারপর দুই হাতকে সামনে প্রসারিত করে পিঠ সোজা রেখে ‘বুক-ডাউন’ দিতে হবে। দেখবেন, হাতের মাংসপেশী বেশ শক্তিশালী হয়ে উঠেছে।

যাদের সাতাঁর কাটার বাতিক আছে, তারা বিভিন্ন পদ্ধতিতে সাঁতার কেটে শরীর-চর্চা করতে পারেন।

মন খুলে কথা বলা উচিত। এতে মন সতেজ থাকে। সর্বদা মুচকি হাসা। এটা নববী সুন্নতও বটে। হাদীস শরীফে আছে, হযরত আবদুল্লাহ বিন হারেস (রা.) বলেন, “আমি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর চেয়ে মৃদু হাসিসম্পন্ন আর কাউকে দেখিনি। [তিরমিযি]
রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, “সাদা-সিধে ভাবে থাকো। মধ্যপন্থা অবলম্বন করো এবং হাসি-খুশিতে থাকো। [মেশকাত শরীফ]

শরীর সুস্থ রাখার উদ্দেশ্যে শরীর-চর্চা হিসেবে সংসারের বিভিন্ন কাজও করতে পারি। ঝাড়ু দেওয়া, কাপড় কাচা, শিল-পাটায় মসলা বাটা ইত্যাদিতে শরীরের ভেতর এক ধরনের কম্পন তৈরী হয়, যা শরীরের জন্যে অনেক উপকারী। এই বিষয়গুলো মাথায় রেখে আমরা যদি ঘরের কাজগুলো করি, তাহলে একদিকে সংসারে সদস্যদের যেমন সহজ হবে, তেমনি কাজকে আর কাজ মনে হবে না; মনে হবে শরীর-চর্চা।

যাদের পেট বেড়ে গিয়েছে, তারা পেটের ব্যায়াম “কার্ডি” করতে পারেন। অর্থাৎ পেটের উপর চাপ সৃষ্টিকারী চর্চাগুলো করা যেতে পারে।

দড়ি-লাফ অথবা শুধু লাফানোটাও বেশ উপকারী।

পড়ার ফাঁকে ফাঁকে দাঁড়িয়ে ধীরে ধীরে হাত-পা নড়াচড়া করানো এবং ঘাড়-কোমর ঘুরানো উচিত।

আরো বিভিন্ন সুন্দর সুন্দর পদ্ধতিতে শরীর-চর্চা করা যেতে পারে। তবে তা যেন হয় অভিজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী। কেননা সঠিক নিয়ম ছাড়া শরীর-চর্চা করলে কোনো লাভ হবে না।

আমাদের শরীর-চর্চা হবে আল্লাহর জন্যে। তাঁর সন্তুষ্টির জন্যে। তাঁর পথে কাজ করার জন্যে। তাহলে একদিকে আমাদের যেমন শরীর-চর্চা হবে, অপরদিকে তা হবে আমাদের জন্যে সওয়াবের বিষয়। এ থেকে আমরা নফল আমলের সওয়াব পাব, ইনশা আল্লাহ।

☞ লেখকের ই-মেইল:
mahdikhanayon@gmail.com

১১৫ Comments

Leave a Comment

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password

শিরোনাম:
  ❖   লেখক ফোরামের এবারের ভ্রমণ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ‘নুহাশ পল্লী’তে   ❖   বাসচাপায় প্রাণ হারালেন মামা-ভাগনে   ❖   ‘দৈনিক বিশ্ব ইজতেমা’— দেশজুড়ে ইজতেমার ধ্বনি   ❖   ২০২১ সালে বিশ্ব ইজতেমার দুই পর্বের তারিখ নির্ধারণ   ❖   আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমা ২০২০   ❖   বিমান বিধ্বস্ত নিয়ে মিথ্যাচার: খামেনির পদত্যাগ চেয়ে বিক্ষোভ   ❖   প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে মুনাজাতে অংশ নেন   ❖   মোদি-অমিত বলেছেন, কাশ্মীর ইস্যুকে সমর্থন করলে মামলা তুলে নিবে:‌ জাকির নায়েক   ❖   প্রথমবারের মত ইরান সফরে কাতারের আমির   ❖   যুগে যুগে তাবলিগ