All for Joomla The Word of Web Design
দিনলিপি

আব্বু, আমিও পড়ব

— নাবিল আব্দুল্লাহ
…(তরুণ লেখক)

গতকাল মোহাম্মদপুর গিয়েছিলাম। আমার আব্বাজান থাকেন সেখানে। আজ ত্রিশ বছর প্রায়। একজন সাধারণ ব্যবসায়ী। প্রতি মাসে একবার যাই আব্বাজানের কাছে। খরচাপাতি আনতে। যদিও এখন প্রযুক্তির যুগ। টাকা আনতে শুধু শুধু সাত সাগর তেরো নদী পাড়ি দিয়ে যাত্রাবাড়ি থেকে মোহাম্মদপুর যাওয়ার কোনো মানে হয় না। তবুও আমি যাই। আনন্দ পাই। বাবাকে দেখার আনন্দ। তৃপ্তি মেটে। বাবাকে দেখার নৈসর্গিক তৃপ্তি। সফরের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি অভিজ্ঞতা তো আছেই। সবমিলিয়ে দারুণ অনুভব করি। তাই যাই।

সেই সুবাদেই গতকাল মোহাম্মদপুর যাওয়া। মাগরিব পড়ে গুলিস্তান থেকে বাসে ওঠেছি। মোহাম্মদপুর আসতে না আসতেই কানে ভেসে এলো এশার আজানের ধ্বনি। তবে আজ সাত সাগর তেরো নদী পাড়ি দেওয়ার কষ্ট ষোলকলা পূর্ণ না হলেও চৌদ্দকলা নিশ্চিত পূর্ণ হয়েছে। কারণ, অন্যদিনের মতো আজকের ট্রাফিক জামটাও ছিল অসহনীয় এবং অবর্ণনীয়। এজন্যই হয়তো ঢাকা শহরের আরেক নাম— ‘ভোগান্তির শহর’।

তারপর বাস থেকে নেমে সোজা চাচার বাসায় গেলাম। ব্যাগ রেখে বেরিয়ে পড়লাম এশার নামাজ আদায়ের উদ্দেশ্যে। পথ ধরে যাচ্ছিলাম মসজিদের দিকে। মসজিদের কাছাকাছি আসতেই নজরে পড়ল একজোড়া বাপ-বেটার দিকে। বেটার বয়স তিন, সাড়ে তিন কিবা বড়োজোর চার হবে। অর্থাৎ ছোট্ট একটা মানুষ। বলাচলে, পিচ্চি। আমি হাঁটার গতি বাড়িয়ে তাঁদের কাছাকাছি যাওয়ার চেষ্টা করলাম। উদ্দেশ্য পিচ্চিটাকে আলতো করে ছুঁয়ে দেওয়া।

পিচ্চিটা খুব তিড়িংবিড়িং করে হাঁটছিল। তার বাবার আঙুল ধরে নেচে নেচে যাচ্ছিল। আর গুনগুন করে তার বাবার সাথে কী যেন বলছিল। এমনিতেই ছোট্ট ছোট্ট বাচ্চাদের প্রতি আমি খুবই দুর্বল। তাদের সামনে পেলে কোলে নিয়ে আদর করতে, চুমু খেতে খুব ইচ্ছে করে আমার। আর যদি কোনো পিচ্চি মসজিদে যায় বা কোনো পিচ্চিকে নামাজ পড়তে দেখি, তাহলে তাকে মাথায় তুলে নাচতে মন চায়। পিচ্চিদের প্রতি তীব্র মায়া-মোহাব্বত থেকেই মূলত এই অদ্ভুত ইচ্ছা।

আমি বাপ-বেটার কাছাকাছি পৌঁছে গেলাম। পিচ্চিটাকে আলতো করে ছুঁয়েও দিলাম। তারপর বাবার সাথে পিচ্চির কথোপকথনে পিচ্চির মুখে যা শুনলাম, তা রীতিমতো আমাকে চমকে দিয়েছে। অভিভূত করেছে। আপ্লুত করেছে। আমি কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়েছি।

পিচ্চিটা তার বাবাকে জিজ্ঞেস করল—
আব্বু, তুমি কোথায় যাচ্ছো?
তাঁর বাবা বললেন— মসজিদে যাচ্ছি।
পিচ্চি বললো— সেখানে গিয়ে কী করবা?
বাবা— নামাজ পড়ব।
তৎক্ষণাৎ পিচ্চিটা বলে ওঠল— তোমার সাথে আমিও নামাজ পড়ব।

মা শা আল্লাহ!
সত্যিই আমার হৃদয় ছুঁয়ে গেছে। নিষ্পাপ শিশুর মুখে এমন অকল্পনীয় সুন্দর কথা শুনে চমকিত হবে না এমন কি কেউ থাকতে পারে? পাথর দিলও গলে যাবে এমন সুন্দর কথায়। এমন আদর্শ, শিক্ষিত, দীনদার বাবা-মা’ই তো দরকার প্রতিটি পরিবারে। যাদের অনুসরণ-অনুকরণ করে তাদের কলিজার টুকরা সম্তানরা হবে শিক্ষিত-দীক্ষিত, দীনদার-ইমানদার এবং জগদ্বিখ্যাত সেরা মানুষ। তবেই তো গড়ে ওঠবে আদর্শ পরিবার, সুশীল সমাজ, সমৃদ্ধ রাষ্ট্র, এবং সুশৃঙ্খল পৃথিবী।

মাই নিউজ/মাহদী

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password

শিরোনাম:
  ❖   রাস্তার ছেলে   ❖   সাধারণ রোগীরা কি চিকিৎসা পাচ্ছে?   ❖   বাজেট দিয়ে কী হবে?   ❖   তুরষ্ক পাঠ্যবইয়ে জিহাদ ঢুকিয়েছে, বের করেছে বিবর্তনবাদ   ❖   আরব আমিরাতের করোনা দুর্যোগ মোকাবেলায় ভাইস প্রেসিডেন্টের অনলাইন বৈঠক !   ❖   চার্জ ফ্রি রেমিট্যান্স প্রেরণ সুবিধা চালু করল ব্যাংক এশিয়া   ❖   তিনি কত দয়ালু এবং ক্ষমাশীল   ❖   খিদমাহ ফাউন্ডেশনের চান্দিনায় ইফতার ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ   ❖   সম্পত্তির লোভে বাবাকে পিটিয়ে রক্তাক্ত   ❖   করোনা মৃত্যুতে ইউরোপে শীর্ষে ব্রিটেন