All for Joomla The Word of Web Design
আন্তর্জাতিক

পাকিস্তানী আলেমদের টার্গেট কিলিং নৈপথ্যে কারা বিশ্লেষণ!!

একের পর এক শীর্ষ-স্থানীয় পাক আলেমদের শহীদ করে দিচ্ছে একটি বিশেষ ফেতনাবাজ গোষ্ঠী। এভাবে যদি এইসব টার্গেট কিলিং চলতে থাকে তাহলে অতি-শ্রীঘ্রই পাকিস্তান ধর্মীয় দিক দিয়ে নেতৃত্বহীন হয়ে পড়বে। আজকের টপিকটিতে আমি এই টার্গেট কিলিংয়ের নৈপথ্যে কাদের হাত থাকতে পারে তা সংক্ষেপে তুলে ধরার চেষ্টা করবো।
তা-লে-বা-ন ‌গুরু মাওলানা সামিউল দ্বারা শুরু
এই আলেম হত্যার শুরু হয় পাকিস্তানের বিখ্যাত আলেম মাওলানা সামিউল হক দ্বারা। তাকে পাকিস্তানে ‘ফাদার অব দ্য তা-লে-বা-ন’ নামে চিনে সবাই। ৮০ বছর বয়সী এই মুসলিম নেতা সামিউল হককে রাওয়ালপিন্ডি শহরে শুক্রবার অজ্ঞতনামা ব্যক্তিরা ছুরিকাঘাত করে শহীদ করে। সামিউল হক উত্তর পশ্চিম পাকিস্তানে একটি মাদ্রাসা পরিচালনা করতেন। তাকে তা-লে-বা-ন আন্দোলনের প্রধান নেপথ্য পুরুষ হিসেবে গণ্য করা হতো। কারণ এই আন্দোলনের প্রথম সারির নেতাদের গুরু বা শিক্ষক ছিলেন তিনি। পরে তিনি একটি দল থেকে পাকিস্তানে সেনেটর হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। সামিউল হক পাকিস্তানের খাইবার-পাখতুনতোয়া প্রদেশের আফগানিস্তান সীমান্তের কাছে দারুল উলুম হাক্কানিয়া মাদ্রাসা পরিচালনা করতেন। তারই ছাত্রদেরই একজন ছিলেন বিখ্যাত তা-লে-বা-ন নেতা মোল্লা ও-ম-র।
টার্গেট তাকি উসমানী!
এরপর অজ্ঞাত-নামা শত্রুরা টার্গেট করে বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ইসলামিক স্কলার তাকি উসমানিকে। বিবিসির জরিপে বর্তমানে তাকি উসমানী বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী ইসলামিক ব‌্যক্তিত্ব, এরদোগান থেকেও তাকে এগিয়ে রাখা হয়েছিলো। বিশিষ্ট ধর্মীয় পন্ডিত, মুফতী তকী উসমানীকেও শুক্রবার দিন আক্রমণ করা হয়েছিলো, করাচির নীপা ফ্লাইওভারের নিকটে কিন্ত তিনি প্রাণে বেঁচে যান যদিও তার একজন বডিগার্ড মারা যান গুলিবিদ্ধ হয়ে। বর্তমানে পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই তার নিরাপত্তা দিক দেখাশোনা করছে।
শেষ টার্গেট মাওলানা আদিল!!
শনিবার করাচীতেই টার্গেট কিলিংয়ের শিকার হন আরেক প্রভাবশালী পাক আলেম মাওলানা আদিল। এবং তাকে হত্যা করতে সমর্থ হয় ঐ অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা। পুলিশ বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ডাঃ আদিলকে বহনকারী ভিগো গাড়ি যখন মিষ্টি কেনার জন্য শাহ ফয়সাল কলোনির একটি শপিং সেন্টারের কাছে এসে থামে, তখনি ঐ গাড়িকে লক্ষ্য করে নির্বিচার গুলি চালানো হয়।
শত্রু সামরিক নয় বরং ধর্মীয় নেতৃত্ব-শূন্য করতে চায় পাকিস্তানকে?
এই হামলাগুলির দিকে যদি গভীর দৃষ্টিতে তাকান তাহলে দেখবেন এই তিনজন আলেমের কোনো সামরিক ও রাজনৈতিক ক্ষমতা নেই। তাদের শুধু আছে ধর্মীয় আকিদাগত ক্ষমতা। যেসব শত্রু তাদের আক্রমণ করেছে তারা পাকিস্তানকে সামরিক দিক দিয়ে শক্তিশালী রেখে ধর্মীয় দিক দিয়ে নেতৃত্ব-শূন্য করে ফেলতে চায়। মানে শত্রু হলো মুসলমান পরিচয়-দানকারী বিশ্বাসঘাতক কোনো কুচক্রীদল।
এইসব হত্যাকান্ডে ইরান জড়িত?
সর্বশেষ যে আলেম মারা গেলেন তার নাম আদিল, তার সর্বশেষ সমাবেশ ছিল কোরান সুন্নাহর আলোকে দেওবন্দী,জামাতি ইখওয়ানিদের এক কাতারে আনা ও শীয়াদের রাষ্ট্রীয়ভাবে কাফের ঘোষণা করা। সে এই বিষয়ে জনমত গঠন করা অবস্থায় তাকে শহীদ করা হয়। সন্দেহের তীর শুধু নয় আমি 99% নিশ্চিত এইসব টার্গেট কিলিংয়ে সরাসরি ইরানি শীয়া কুকুররা জড়িত। পাকিস্তান হলো ইরানের সীমান্তবর্তী দেশ ফলে অবাধে পাকিস্তানে ইরানী গোয়েন্দা সংস্থা কাজ করে। এইকাজ গুলো ইরানি এজেন্টরাই করেছে।
প্রথম দুটা হামলা হয়েছে শুক্রবার, আর শেষটা শনিবার সাপ্তাহিক ছুটির দিন। মানে শত্রু বা ঘাতক জানতো ভিকটিম শুক্র অথবা শনিবার ঘটনাস্থলে থাকবে। তার মানে অনেক দিন থেকেই তারা তাদের অনুসরণ করেছে। এইসব আলেমদের শিডিউল সম্পর্কে একমাত্র নিয়মিত এইসব আলেমদের সমাবেশে ভক্ত সেজে যারা যাতায়াত করে তাদের পক্ষেই জানা সম্ভব। অপরদিকে শীয়া কুকুররা মুসলমান সেজে এইসব আলেমদের সমাবেশে গিয়েছে তাদের শিডিউল জেনেছে আর ঘাতক আরেকদল শীয়া কিলারের হাতে তুলে দিয়েছে।
ঘাতকদের লক্ষ্য কি?
এইসব ঘাতকদের লক্ষ্য হলো আকিদা-গতভাবে মুসলমানদের যেসব আলেম বিশুদ্ধ করে রাখতে পারে তাদের নিয়মিত হত্যা করে পাকিস্তানকে ধর্মীয় নেতৃত্বহীন করা। এতে তাদের লাভ হলো এই ঘাতকরা দেখতে পেয়েছে পাকিস্তানের রাজনৈতিক নেতৃত্বের ধর্মীয় কোনো জ্ঞান নাই। তাই এদের ধোঁকা দিয়ে শীয়াদের পক্ষে যেকোনো কাজ করানো যাবে। এরা আরো ভয় পাচ্ছে যে আফগানিস্তানে যদি তা-লে-বা-ন ক্ষমতাশালী হয় তাহলে হয়তো পাকিস্তানের এইসব আলেমরা দুর্বল পাক রাজনৈতিক নেতাদের চাপ দিয়ে একটা অখন্ড ইসলামী ওহাবী ঘেঁষা রাষ্ট্র বানাবে যা ইরানের শীয়াদের জন্য চরম হুমকি, তাই যেসব আলেম এগুলো করতে পারে তাদেরকেই আগেভাগে শহীদ করে দিচ্ছে এসব শীয়ারা।

 

০ Comments

Leave a Comment

Login

Welcome! Login in to your account

Remember me Lost your password?

Lost Password

শিরোনাম:
  ❖   লালমনিরহাটের গণপিটুনি ও পুড়িয়ে হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের দ্রুত শাস্তির আওতায় আনতে হবে: ইশা ছাত্র আন্দোলন, ঢাবি শাখা   ❖   কওমী শিক্ষার্থীদের জাতির উন্নয়নের অগ্রদূত হিসেবে শপথ গ্রহণ করতে হবে: মুফতি শেখ মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম   ❖   ‘হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর শিক্ষা সমগ্র মানব জাতির জন্য অনুসরণীয়’- রাষ্ট্রপতি   ❖   ফরাসিদের সাজা দেয়ার অধিকার মুসলমানদের আছে: মাহাথির   ❖   ফ্রান্স ইস্যুতে নিরপেক্ষ থাকবে বাংলাদেশ   ❖   ইসলাম অবমাননাকর কার্টুন প্রকাশে নিন্দা রাশিয়ার   ❖   অফিসে ধর্মীয় পোশাক, নোটিশ প্রত্যাহার করে দুঃখ প্রকাশ   ❖   মাসে ৭০ হাজার টাকা ভাড়ায় অফিস নিল “গন অধিকার পরিষদ”   ❖   সিনামা-নাটকে বিয়ের দৃশ্যে ‘কবুল’ বলা যাবে না!   ❖   নারীদের হিজাব, পুরুষের টাকনুর ওপর পোশাক পরে অফিসে আসার নির্দেশ